দেশ সংযোগ

পরকীয়ায় জড়িত থাকার কারনে দুই শিক্ষক শিক্ষিকা সাময়িক বরখাস্ত

গঠিত তিন সদস্য বিশিষ্ট  তদন্ত কমিটি

পরকীয়ায় জড়িত থাকার কারনে দুই শিক্ষক শিক্ষিকা সাময়িক বরখাস্ত জনসংযোগ

স্টাফ রিপোর্টার

ঝিনাইদহের হরিনাকুন্ডু উপজেলার ৭নং রঘুনাথপুর ইউনিয়নের তোলা মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের  সহকারী শিক্ষক আমিরুল গ্রাম মাঠ আন্দুলিয়া ও ধর্মীয় শিক্ষিকা মোছাঃ আসমা খাতুন গ্রাম পোড়াহাটী,কে পরকীয়া ও অনৈতিক কর্মকান্ডে জড়িত থাকার কারনে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে।

জানা যায়, তোলা মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক আমিরুল ও শিক্ষীকা আসমা খাতুনের মোবাইল মেসেঞ্জারের অশ্লীল চ্যাটিং সোসাল মিডিয়ায় ছড়িয়ে পড়ে এবং মুহূর্তেই তা ভাইরাল হয়ে যায়। ম্যসেঞ্জারের অশ্লীল চ্যাটিং এর বিষয় সামনে আসার পরেই  বোঝা যায় শিক্ষক আমিরুল ও শিক্ষীকা আসমার মধ্যে দীর্ঘ দিন প্রেম ভালবাসা পরকীয়া চলে আসছে। তাদের মোবাইল চ্যাটিং এ আরো বোঝা যায় যে তারা একে ওপরের শরীর দেখা দেখিও করে। এবং কোন এক আত্মীয়দের বাসায় যেয়ে নিজের যৌন লালসা মেটানোর পরিকল্পনাও তারা করেন।

তাদের মোবাইল মেসেঞ্জারে অশ্লীল চ্যাটিং সামাজিক যোগাযোগে মাধ্যমে গত ১৫-০১-২৪ ইং তারিখে  ছড়িয়ে পড়ে, যার কারনে এলাকায় স্কুল পড়ুয়া ছেলে মেয়ে ও জনসাধারণের মাঝে একটা আলোচনা সমালোচনার ঝড় সৃষ্টি হয়। স্কুল শিক্ষক ও শিক্ষিকার পরকীয়ার অশ্লীল চ্যাটিং সামজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হবার পরে এলাকার মানুষ বিষয়টি মেনে নিতে পারেনি। স্থানীয় বাসিন্দা আবু বক্কর সিদ্দিকী জানান,শিক্ষক-শিক্ষিকা জাতির মেরুদণ্ড তৈরির কারিগর হয়ে যদি এরকম অশ্লীল অনৈতিক কর্মকান্ডে জড়াতে পারে তবে তাদের দারা কি শিক্ষা নিবে কোমলমতি শিশরা। আমরা এদের বহিষ্কার চাই।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক কয়েকজন অভিভাবক সাংবাদিকদের কাছে অভিযোগ করর বলেন, আমাদের কোমলমতি শিশুরা এই স্কুলে পড়াশোনা করতে আসে কিন্তুু শিক্ষক -শিক্ষিকার এরকম অশ্লীল কর্মকান্ডে আমরা শঙ্কিত, কি শিক্ষা নিবে আমাদের বাচ্চারা?

এই সকল ঘটনার ধারাবাহিকতায়  গতে  ২৫-০১-২৪ ইং তারিখে রোজ বৃহস্পতিবার সকালে এলাকার সাধারণ জনগণ স্কুল স্থলে এসে ঐ শিক্ষক ও শিক্ষীকার স্কুল থেকে বরখাস্ত ও চাকুরী থেকে অপসারণের অভিযোগ এনে প্রধান শিক্ষক ও সভাপতির উপরে চাপ প্রয়োগ করেন। এতেকরে স্কুলে এক পর্যায়ে সাধারণ জনগণের মধ্যে একটা হট্টগোল সৃষ্টির সম্ভাবনা দেখা দেই পরে স্কুল কর্তৃপক্ষ শান্তি শৃঙ্খলা বজায় রাখার সার্থে প্রশাসন কে অবহিত করেন, প্রশাসন উপস্থিত হয়ে পরিবেশ শান্ত করেন।

পরে স্কুল কর্তৃপক্ষ ম্যানেজিং কমিটির এক সভার আয়োজন করে সেই সভায় শিক্ষক আমিরুল ও শিক্ষীকা আসমা খাতুনের অশ্লীল মোবাইল মেসেন্জার চ্যাটিং সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছরিয়ে পরার বিষয় টা নিশ্চিত হয়ে ম্যানেজিং কমিটির সিন্ধান্তে সভাপতি মোঃ হাসেম মিয়া ওই  শিক্ষক ও শিক্ষিকাকে ২ মাসের সাময়িক বরখাস্ত করেন। এছাড়াও  তিন সদস্যের একটি তদন্ত টিম গঠন করা হয়।

কিন্তু বরখাস্তের কপিতে এমন কিছু উল্লেখ নাই যে তদন্ত শেষে যদি তারা দোষি প্রমাণ হয় তাহলে পরবর্তীতে আইনগত ভাবে তারা ব্যাবস্থা গ্রহণ করে চাকুরি থেকে অপসারণ করা হবে। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একজন আমাদের কে জানান যে আমার জানা মতে এমন কোন নিতিমালা নাই যে বরখাস্তের পরে তদন্ত টিম গঠন করা হয়। এই বিষয়ে স্থানীয় জনগণের মধ্যে  আবারো অসন্তোষ দেখা দিয়েছে,স্থানীয় জনগণের দাবি এই শিক্ষক আমিরুল ও শিক্ষিকা মোছাঃ আসমা খাতুন শিক্ষক জাতির কলঙ্কে রুপান্তর করেছে, তারা এদের স্থায়ী ভাবে চাকরি থেকে বরখাস্তের দাবি করেছেন।

আপনার পণ্য বা প্রতিষ্ঠানের বিজ্ঞাপন দিন এখানে

এ সম্পর্কিত আরও খবর

আপনার পণ্য বা প্রতিষ্ঠানের বিজ্ঞাপন দিন এখানে
Back to top button

Adblock Detected

Please consider supporting us by disabling your ad blocker