দেশ সংযোগ

সাতক্ষীরা জেলার শ্যামনগর উপজেলার সুন্দরবন প্রেসক্লাব উপকূলের স্বপ্নের আশ্রয়স্থল

সাতক্ষীরা জেলার শ্যামনগর উপজেলার সুন্দরবন প্রেসক্লাব উপকূলের স্বপ্নের আশ্রয়স্থল জনসংযোগ

রাকিবুল হাসান, সাতক্ষীরা শ্যামনগর প্রতিনিধিঃ

সুন্দরবন উপকূলের সাংবাদিকদের একটি আশ্রয়স্থল হিসেবে গড়ে তোলা হয়েছে সুন্দরবন প্রেস ক্লাব। যেখানে শ্যামনগর জনপদে ইউনিয়ন ভিত্তিক সাংবাদিকদের তেমন কোনো স্থান ছিল না উপজেলা প্রেসক্লাবে। এই উপকূলের জনপদের সাংবাদিকরা ২০১৭ সালে তরুণ সাংবাদিকদের উদ্যোগে গড়ে তোলা হয় সুন্দরবন প্রেসক্লাব। মুন্সিগঞ্জ বাজারের বাসষ্টান সন্নিকটে সুন্দরবন প্রেসক্লাব অবস্থিত । তিল তিল করে গড়ে তোলা লালিত স্বপ্ন আজ বাস্তবায়ন হতে চলেছে। এক ঝাঁক তরুণ সাংবাদিকদের অক্লান্ত পরিশ্রমে সুন্দরবন প্রেসক্লাবের ভবন আজ আলোকসজ্জিত প্রাণবন্ত পরিবেশ মুখর হয়ে উঠেছে।

কেন সুন্দরবন প্রেসক্লাব আজ স্বপ্নে লালিত : বিশ্বের ম্যানগ্রোভ ফরেস্ট সুন্দরবন পরিচিত, যেখানে প্রতিনিয়ত এই উপকূল অঞ্চলে ঘূর্ণিঝড়, জলোচ্ছ্বাস, নদী ভাঙ্গন সহ প্রাকৃতিক দুর্যোগের মরনঘাতে আক্রমণ সৃষ্টি হয়। সিডোর আইলা থেকে গত ১৫ বছরে ১১ টি দুর্যোগ উপকূলে আঘাত হানে। যেখানে সুন্দরবন প্রেসক্লাব থেকে তরুণ সাংবাদিকরা উপকূলের মানুষের কথা প্রতিনিয়ত তুলে ধরার চেষ্টা করেছেন। এমনকি দুর্যোগ পরিস্থিতিতে জেলা ও জেলার বাইরের সাংবাদিকরা সুন্দরবন প্রেস ক্লাবে এসে দুর্যোগ মুহূর্তে জরুরী নিউজগুলো কভার করেছেন। আমরা আজও প্রতিয়মান নদী ভাঙ্গন, সুন্দরবনের বাঘের আক্রমণ সহ প্রাকৃতিক দুর্যোগের তথ্যগুলো সুন্দরবন প্রেসক্লাব এর সদস্য সাংবাদিকরা আগেই তুলে ধরেন গণমাধ্যমে তারপরে চোখে পড়ে প্রশাসন ও রাষ্ট্রের। আপনারা জানেন শ্যামনগর উপজেলা বাংলাদেশের সর্ববৃহৎ উপজেলা, যেখানে ১২টি ইউনিয়ন নিয়ে গঠিত এবং এই জনপদে বিশেষ করে সুন্দরবন নির্ভরশীল ও চিংড়ি চাষের কারণে এলাকার প্রচুর মানুষ বাঘের আক্রমণের শিকার সহ কর্মসংস্থানের সংকটে ভুগতে হয়। সেই সকল অবহেলিত দুর্যোগ প্রবণ এলাকার মানুষের কথা তুলে ধরতে গিয়ে মানুষের পাশে ছুটে যেতে হয়েছে সুন্দরবন প্রেসক্লাবের গণমাধ্যম কর্মীদের। ২০১৬ সালে বাংলাদেশ পর্যটন বর্ষ ঘোষণা হয়েছে। সুন্দরবন উপকূলে একটি পর্যটন সম্ভাবনায় স্থান হিসেবে তুলে ধরা হয়েছিল যেটি সুন্দরবন প্রেসক্লাবের সাংবাদিকদের অক্লান্ত পরিশ্রমের ফসল হিসেবে রাষ্ট্র সেই স্বীকৃতি দিয়ে আকাশলীনা ইকো ট্যুরিজম সেন্টার নির্মিত হয়েছে। বিশেষ করে উপকূলের কর্মসংস্থান হারিয়ে সুন্দরবন উপরে নির্ভরশীলতা বাড়লে বনজীবীদের নিরাপত্তা সহ বন বিভাগের সাথে সমন্বয় করে তাদের জীবন জীবিকা এবং অবহেলিত খেটে খাওয়া মানুষের দুঃখ দুর্দশার কথা তুলে ধরার সর্বাত্মক চেষ্টা করে চলছে। সুন্দরবনের বাঘের আক্রমণের শিকার বনজীবী ও বাঘ বিধবাদের সামাজিক মর্যাদায় রাষ্ট্রের সহযোগিতা সহ বিভিন্ন সরকারি বেসরকারি সহযোগিতার জন্য তাদের মানবতার জীবনের কতগুলো তুলে ধরেছেন সুন্দরবন প্রেসক্লাবের গণমাধ্যম কর্মীরা। সরকারের বিভিন্ন উন্নয়ন পরিকল্পনায় সহযোগিতার পাশাপাশি গণমানুষের কথা তুলে ধরেছেন সহযোদ্ধা সাংবাদিক বৃন্দরা। বলে রাখা দরকার সুন্দরবন প্রেসক্লাবের একটি অরাজনৈতিক প্রতিষ্ঠান যেখানে সকল শ্রেণীর মানুষের কথা বলার সুযোগ রয়েছে। উপকূলের অধিকার বঞ্চিত মানুষের একটু হাতছানিতে ছুটে যান সুন্দরবন প্রেসক্লাবের সাংবাদিকবৃন্দরা পাশে দাঁড়িয়েছেন বিভিন্ন অধিকার আদায়ের আন্দোলনে রাজপথে। উপকূলের বেড়িবাঁধ সুরক্ষায় গণমাধ্যম কর্মীদের ব্যাপক ধরনের ভূমিকা রয়েছে বলে ইতিমধ্যেই রাষ্ট্রের উন্নয়ন পদক্ষেপে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা লক্ষ্য করা যাচ্ছে। উপকূলের সবচেয়ে বড় সংকট সুপেয় পানি। পানির অধিকার নিয়ে প্রতিনিয়ত সুন্দরবন প্রেসক্লাবের সাংবাদিকরা উপকূলের মানুষের দাবির কথাগুলো তুলে ধরার চেষ্টা করে যাচ্ছেন। আমরা বিশ্বাস করি সুন্দরবন প্রেসক্লাব উপকূলের অধিকার বঞ্চিত মানুষের একটি আশ্রয়স্থল।

আপনার জানেন বিশ্বব্যাপী জলবায়ু পরিবর্তনের সবচেয়ে ঝুঁকিপূর্ণ দুর্যোগ প্রবণ এলাকা শ্যামনগর। এই জনপদের মানুষের জীবন জীবিকা টিকে থাকা বড় দুর সাধ্য দুরাহো। এখানে বিকল্প কর্মসংস্থানের সুযোগ সৃষ্টি সহ প্রাকৃতিক দুর্যোগের সাথে খাপ খাওয়ায়ে নিয়ে টিকে থাকার বিভিন্ন পদক্ষেপ কৌশল মানুষের কাছে পৌঁছে দেওয়া নিরলস তথ্য দিয়ে পরিশ্রম করে যাচ্ছে সুন্দরবন প্রেস ক্লাবের কর্মীরা।

সম্প্রতি সুন্দরবন প্রেসক্লাবের ভবন উদ্বোধনে উপকূলীয় জনপদ শ্যামনগর সহ দেশ ও দেশের বাইরে বিভিন্ন গুণী মহৎ এবং দানশীল ব্যক্তিদের সহযোগিতায় সুন্দরবন প্রেস ক্লাবের ভবন নির্মিত হয়েছে।

সুন্দরবন সুন্দরবন প্রেসক্লাব প্রতিষ্ঠা থেকে যার অক্লান্ত পরিশ্রম ও অবদান না বললে নয়, জায়গা দিয়ে সহযোগিতা করেছেন প্রতিটা মুহূর্তে পাশে থেকে আন্তরিক সহযোগিতা করেছেন সুন্দরবন প্রেস ক্লাবের উপদেষ্টা রাজনৈতিক ব্যক্তিত্ব সমাজসেবক এস এম জাহাঙ্গীর আলম । এছাড়া ভবন নির্মাণে মহৎ উদ্যোগ গ্রহণ করা প্রিয় দুই অনুজ সাংবাদিক সভাপতি বিল্লাল হোসেন ও সম্পাদক মাসুম বিল্লাহ নিবেদিত প্রাণের উৎসাহ জুগিয়ে সহযোগিতার হাত বাড়িয়েছেন প্রেসক্লাবের সাংবাদিকরা। নতুন বছরের সুরের ঝলকানিতে আসছে

আগামী ২৮ জানুয়ারি ২০২৪ দিনব্যাপী জমকালো অনুষ্ঠানের মধ্য দিয়ে সুন্দরবন প্রেসক্লাবের ভবন উদ্বোধন হতে যাচ্ছে। যেখানে সত্য নবনির্বাচিত সাংসদ এসএম আতাউল হক দোলন প্রধান অতিথি ও উদ্বোধক হিসেবে উপস্থিত থাকার সদয় সম্মতি জ্ঞাপন করেছেন। উক্ত অনুষ্ঠানে আপনিও আমন্ত্রিত।

আপনার পণ্য বা প্রতিষ্ঠানের বিজ্ঞাপন দিন এখানে

এ সম্পর্কিত আরও খবর

আপনার পণ্য বা প্রতিষ্ঠানের বিজ্ঞাপন দিন এখানে
Back to top button

Adblock Detected

Please consider supporting us by disabling your ad blocker